পাঠানটুলায় যুবকের আত্মহত্যা।

নগরীর পাঠানটুলা এলাকা থেকে মিফতাহুর রহমান (৩৫) নামে এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহত ওই যুবক দিরাই উপজেলার জগদল ইউনিয়নের কদমতলি গ্রামের মতিউর রহমানের ছেলে।
শনিবার সকাল ১১ টার দিকে পাঠানটুলার নিকুঞ্জ আবাসিক এলাকা থেকে মরদেহ উদ্ধার করা হয়।
নিহতের চাচা মুহিবুর রহমান বলেন, আমাদের ধারণা হচ্ছে কেউ আমার ভাতিজাকে গলায় ফাঁস দিয়ে মেরে ফেলেছে। পরে আবার তার মরদেহ নামিয়ে রাখে। কারণ আমরা সকাল ১১ টার দিকে আমরা ঘটনাস্থলে গিয়ে দিকে ঘরের মেঝেতে আমার ভাতিজার মরদেহ পড়ে আছে।
তিনি আরও বলেন, ‘ঘটনাস্থলে এক তরুণীকে পাওয়া গেছে। সে আমাদের জানিয়েছে যে, আমার ভাতিজার সাথে তার প্রেমের সম্পর্ক ছিলো। তবে বিয়ে হয়েছিল কি-না সেটি আমরা বলতে পারবো না। মেয়েটির বাড়ি হচ্ছে বাগেরহাটের ফকিরহাট থানা এলাকায়।
কোতোয়ালী থানার ওসি মো. সেলিম মিঞা বলেন, আমরা মরদেহ উদ্ধার করেছি। একই সাথে ঘটনাস্থলে থাকা এক তরুণীকে আটক করেছি। ওই তরুণী সম্প্রতি মায়ের সাথে সিলেটে আসে। এবং তরুণীর মা তাকে ছেলের কাছে রেখে চলে যায়। সবশেষ গতকাল শুক্রবার রাতে তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়। এতে দুজন দুই রুমে চলে যায়। মেয়েটি একরুমে বসে ব্লেড দিয়ে হাত কাটছিলো। আর ছেলেটি গলায় ফাঁস দেয় বলে জানিয়েছে তরুণী। এরপর তরুণী দ্রুত এসে ছেলেটিকে নামিয়ে ফেলে। পুলিশ মরদেহ নামানো অবস্থায় পেয়েছে বলেও জানান তিনি।
তিনি জানান, বর্তমানে আত্মহত্যার প্ররোচণা দেয়ার অভিযোগে তরুণীকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*